বীজ প্রত্যয়ন এজেন্সী গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৩০ অক্টোবর ২০১৫

উইং সমূহ

 

বীজ প্রত্যয়ন এজেন্সী’র উইং ওয়ারী কার্যক্রম

 

            বীজ প্রত্যয়ন এজেন্সীর পরিচালক (গ্রেড-২) এ এজেন্সীর প্রশাসনিক প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে এ এজেন্সীতে মোট ৫৬৯ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর পদ রয়েছে। তন্মধ্যে ২৫১টি পদ বিসিএস (কৃষি) ক্যাডারভুক্ত। বীজ প্রত্যয়ন এজেন্সীতে ৩টি কারিগরী উইং রয়েছে-

          ক) প্রশাসন ও অর্থ  উইং

          খ) মাঠ প্রশাসন, পরিকল্পনা ও মনিটরিং উইং

           গ) সীড রেগুলেশন ও মান নিয়ন্ত্রণ উইং

 

(ক) প্রশাসন ও অর্থ উইং

সংস্থার যাবতীয় প্রশাসনিক ও অর্থনৈতিক কার্যাবলী পরিচালা ও সম্পাদন করা এবং পরিচালক, বীজ প্রত্যয়ন এজেন্সী কে সহায়তা প্রদান করা এই উইং এর দায়িত্ব। অতিরিক্ত পরিচালক (গ্রেড-৩) এই উইং এর  প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। প্রশাসন এবং অর্থ ও হিসাব শাখাদ্বয়ের মাধ্যমে এই এজেন্সীর কার্যাবলী সম্পাদিত হয়ে থাকে।

১)প্রশাসন শাখা:

-সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারিদের নিয়োগ, বদলী, শ্রান্তি বিনোদন, সিলেকশন গ্রেড, টাইম স্কেল সংক্রান্ত কার্যাদি সম্পাদন।

-অবকাঠামো রক্ষনাবেক্ষণ এবং যানবাহন ক্রয় ও রক্ষনাবেক্ষণ সংক্রান্ত কার্যাদি সম্পাদন।

-এজেন্সীতে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বীজ প্রযুক্তি বিষয়ক প্রশিক্ষণসহ কম্পিউটার প্রশিক্ষণ, অফিস প্রশাসন ও ব্যবস্থাপনা এবং হিসাব বিষয়ক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা।

-এজেন্সীর বার্ষিক প্রতিবেদন মুদ্রন ও  নিয়োমিত প্রকাশনাসমূহ প্রকাশসহ লাইব্রেরি ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন।

-কৃষি মন্ত্রণায়সহ অন্যান্য  মন্ত্রণালয় ও সংস্থার চাহিত রিপোর্টসমূহ প্রণয়ন ও প্রেরণ।

-এছাড়াও এজেন্সীর অন্যান্য প্রশাসনিক কার্যাদি সম্পাদন।

২) অর্থ ও হিসাব শাখা:

-        সংস্থার বাৎসরিক বাজেট প্রণয়ন এবং অধীনস্ত অফিসসমূহে বাজেট বরাদ্দ প্রদান।

-        কৃষি মন্ত্রণালয় ও প্রধান হিসাবরক্ষণ অফিস এর চাহিদা মোতাবেক রিপোর্ট প্রণয়ন ও প্রেরণ।

-        কর্মকর্তা-কর্মচারিগণের বেতনসহ আনুষাঙ্গিক বিল তৈরী ও সরকারি ট্রেজারী হতে উত্তোলন।

-        বিধিমোতাবেক অর্থনৈতিক নিরীক্ষা কার্যাদি পরিচালনা।

-        এজেন্সীর বিভিন্ন প্রকল্প ও কর্মসূচিসমূহের অর্থনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনায় সহায়তা প্রদান।

 

(খ) মাঠ প্রশাসন, পরিকল্পনা ও মনিটরিং উইং :

     এই উইং মানসম্পন্ন বীজ উৎপাদন, বীজের মান নিয়ন্ত্রণ ও পরিকল্পনা এবং মনিটরিং  সেবা প্রদান করে আসছে। এজেন্সীর বীজ প্রত্যয়ন কার্যক্রমের আওতায় মাঠ পরিদশন ও বীজ পরীক্ষণ এবং পরিকল্পনা ও মনিটরিং কার্যক্রম এর উইং মাধ্যমে পরিচালিত হয়ে থাকে। উইং প্রধান হিসেবে অতিরিক্ত পরিচালক (গ্রেড-৩)  যাবতীয় কর্মকান্ড পরিচালনা করে থাকেন। এই উইং এর তিনটি শাখা রয়েছে।

      ১) মাঠ প্রশাসন শাখা

      ২) বীজ পরীক্ষা শাখা

       ৩) পরিকল্পনা বাস্তবায়ন ও মূল্যায়ণ শাখা।

১) মাঠ প্রশাসন শাখা:

     সারাদেশে ৬৪ জন জেলা বীজ প্রত্যয়ন কর্মকর্তার মাধ্যমে মাঠ পরিদর্শন কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়ে থাকে। জেলা বীজ প্রত্যয়ন  কর্মকর্তার কর্মকান্ড তদারকি ও মনিটরিং এর জন্য দেশের ৭টি অঞ্চলে ৭জন আঞ্চলিক বীজ প্রত্যয়ন কর্মকর্তা রয়েছেন। উল্লেখযোগ্য মাঠ কার্যক্রমের মধ্যে রয়েছে:

-প্রজনন, ভিত্তি, প্রত্যায়িত শ্রেণীর বীজ ফসলের মাঠ পরিদর্শন, পর্যবেক্ষণ ও প্রত্যয়ন প্রদান।

-গবেষণা প্রতিষ্ঠান, বিএডিসি এবং অন্যান্য সরকারী ও বেসরকারী সংস্থার বীজ উৎপাদন, বীজ প্রক্রিয়াজাতকরণ, সংরক্ষণ কার্যক্রম মনিটরিং এবং নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পরীক্ষাগারে প্রেরণ।

-সরকারী মুদ্রণালয় হতে ট্যাগ মুদ্রণ পূর্বক সন্তষজনক ফলাফলের ভিত্তিতে আঞ্চলিক কার্যালয়ের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট জেলা বীজ প্রত্যয়ন কর্মকর্তা কর্তৃক বীজ প্রক্রিয়াজাতকরণ কেন্দ্রে ট্যাগ সরবরাহ নিশ্চিত ও তদারকি করা ।

-অনুমোদিত বীজ ডিলার কর্তৃক বিক্রিত বীজের মান সঠিক আছে কিনা যাচাই করার লক্ষ্যে দোকান পরিদর্শন, মার্কেট মনিটরিং ও নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষাগারে প্রেরণ।

-প্রজনন শ্রেণীর বীজের জন্য সবুজ, ভিত্তি শ্রেণীর বীজের জন্য সাদা ও প্রত্যায়িত শ্রেণীর বীজের  জন্য নীল ট্যাগ সরবরাহ ও সংযোজন করার কার্যক্রম তদারকি করা হয়।

-ফসলের Inbreed এবং Hybrid জাতের অঞ্চলভিত্তিক মাঠ মূল্যায়ন কর্মকান্ড পরিচালনা করা।

-Truthfully Labeled Seed (TLS) বা মান ঘোষিত বীজের গুণগত মান যাচাই করা।

-এছাড়াও বীজের মান নিয়ন্ত্রণের জন্য দেশের নদীবন্দর, স্থলবন্দর ও বিমানবন্দরে বিদেশ থেকে আগত প্রেরিত বীজের নমুনা পরীক্ষাগারে প্রেরণ এবং ফলাফল সংশ্লিষ্টরফতানী/ আমদানীকারককে অবহিত করা হয়।

 

২) বীজ পরীক্ষা শাখা:

         এই শাখার অধীনে ১টি কেন্দ্রীয় বীজপরীক্ষাগার, ৭টি বিভাগে আঞ্চলিক বীজ প্রত্যয়ন কর্মকর্তার অধীনে ১টি করে মোট ৭টি আঞ্চলিক বীজ পরীক্ষাগার ও ২৫টি জেলায় জেলা বীজ প্রত্যয়ন অফিসারের কার্যালয়ে স্থাপিত ২৫টি মিনি বীজ পরীক্ষাগার আছে। এসব পরীক্ষাগারে বীজের বিশুদ্ধতা, অংকুরোদগম ক্ষমতা, বীজের আর্দ্রতা পরীক্ষা করা হয়ে থাকে। এছাড়াও এই শাখা কর্তৃক পরিচালিত বীজ পরীক্ষা সংক্রান্ত অন্যান্য কার্যক্রমের মধ্যে রয়েছে:

-দেশের বিভিন্ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান যেমন BRRI, BINA, BARI, BJRI হতে উৎপাদিত ধান, গম, পাট ও আলুর প্রজনন বীজ এবং বিএডিসি, বেসরকারি উৎপাদক ও এনজিও কর্তৃক উৎপাদিত ভিত্তি এবং প্রত্যায়িত বীজের বীজমান পরীক্ষা করে ফলাফল সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে অবহিত করা।

-মার্কেট মনিটরিং কার্যক্রমের আওতায় সংগৃহীত সকল প্রকার ঘোষিত ও অঘোষিত ফসলের বীজের নমুনা সংগ্রহ পূর্বক জাতীয় ও আঞ্চলিক বীজ পরীক্ষাগারে বীজ মান পরীক্ষা করে ফলাফল সংশ্লিষ্ট ডিলার/উৎপাদনকারী এবং  কৃষি মন্ত্রণালয়য়ের বীজ উইংকে অবহিত করা ।

-কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অধীন পরিচালিত প্রকল্পসমূহের আওতায় চায়ী পর্যায়ে উৎপন্ন বিভিন্ন ফসলের বীজের মান যাচাই করে ফলাফল প্রেরণ।

-কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্ভিদ সংরক্ষণ উইং এর অধীনে সংগনিরোধ কেন্দ্রসমূহ কর্তৃক প্রেরিত বিভিন্ন ফসলের বীজের নমুনা পরীক্ষা করে ফলাফল মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে প্রেরন করা।

-আন্তর্জাতিক বীজ পরীক্ষা সংস্থা (International Seed Testing Association) এর Referee Sample Testing কার্যাদি সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করা।

 

৩. সীড রেগুলেশন ও মান নিয়ন্ত্রণ উইং :

বীজ প্রত্যয়ন এজেন্সী জোরদারকরণ প্রকল্পের সহায়তায় ১৯৯৫ ইং সালে সংস্থায় জাত পরীক্ষণ কাযক্রম শুরু হয়।  পরবর্তীতে ১৯৯৭ সালে ১২ একর কন্ট্রোল ফার্ম প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর নিয়মিত ভাবে জাত পরীক্ষণ কার্যক্রম বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া, ২০০৯ সনে ডিএনএ ফিঙ্গার প্রিন্টিং (DNA finger-printing) এর প্রাথমিক সুবিধাসহ একটি জাত পরীক্ষাগার স্থাপিত হয় । এই উইং এর মূল উদ্দেশ্য হলোঃ নোটিফাইড ফসলের নতুন জাত ছাড়করণে সমন্বয় সাধন ও ছাড়কৃত বিভিন্ন জাতের কৌলিক বিশুদ্ধতা সংরক্ষণ এবং সংশ্লিষ্ট নীতিমালা, আইন, ইত্যাদি প্রণয়ন সংক্রান্ত কার্যাদি সম্পাদন করা।  এই উইং এর  প্রধান হিসেবে অতিরিক্ত পরিচালক (গ্রেড-৩) কর্মরত রয়েছেন। এই উইং এর কার্যক্রম  সীড রেগুলেশন ও মান নিয়ন্ত্রণ শাখার মাধ্যমে পরিচালিত হয়ে থাকে।

১)সীড রেগুলেশন শাখা:

-সংস্থার বিভিন্ন নীতিমালা ও আইন প্রণয়নসহ কৃষি মন্ত্রণালয় এর নির্দেশনা মোতাবেক নীতিমালা ও আইন প্রণয়নে সহায়তা প্রদান করা।

-সংস্থার আইনগত বিভিন্ন সমস্যা সংশ্লিষ্ট উইংকে পরামর্শ দ্বারা সহোযোগীতা প্রদান।

-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন নীতিমালা/ আইনকানুন যুগোপযোগীকরণে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা ।

 

২) মান নিয়ন্ত্রণ শাখা :

-নোটিফাইড ফসলের জাতছাড়করণ কার্যক্রমের আওতায় উদ্ভাবিত ফসলের ডি ইউ এস (DUS) (Distinctness, Uniformity and Stability) টেষ্ট সম্পাদন করা। বীজ বিধিমালা, ১৯৯৮ এর ধারা ৬ অনুসারে বীজ প্রত্যয়ন এজেন্সীর দায়িত্ব হিসেবে এই টেষ্টের কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে থাকে। 

  

-প্রস্তাবিত জাতের সনাক্তকারী বৈশিষ্ট্যের একটি বর্ণনা (Descriptor)  তৈরী করা হয় । এই টেষ্টের মাধ্যমে Breeder’s Right প্রতিষ্ঠিত হয় এবং ফসলের জাত হনন (Varietal Piracy) থেকে রক্ষা পায়।

-প্রি-পোষ্ট কন্ট্রোল ও গ্রো-আউট টেষ্ট (Pre - Post Control & Grow-out Test) : প্রজনন, ভিত্তি ও প্রত্যায়িত শ্রেণির যে সব লট বীজ পরীক্ষায় অনুমোদিত মানের পাওয়া যায়, সে সব লটের পূর্বগৃহীত নমুনার একাংশ হতে বীজ প্রত্যয়ন এজেন্সী’র কন্ট্রোল ফার্মে ফসল উৎপাদন করে সংশ্লিষ্ট  শাখার কর্মকর্তাগণ অফ টাইপ/ বিজাত সনাক্তকরণের মাধ্যমে জাতের কৌলিক বিশুদ্ধতা নিরূপন করেন। অত:পর ফসলের উপযুক্ত পর্যায়ে মাঠ দিবস অনুষ্ঠান করে ত্রুটিপূর্ণ নমুনা প্লটের লটসমূহ হতে মাঠ পর্যায়ে উৎপাদিত বীজ ফসলের মাঠ প্রত্যয়নকারী কর্মকর্তা এবং বীজ উৎপাদনকারী সংস্থার প্রতিনিধিগণকে সরেজমিনে পরিদর্শনের ব্যবস্থা করা হয় এবং জমিগুলি নিবিড় পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে অফটাইপ/ বিজাত রোগিং এর পরামশৃ প্রদান করা হয়। এটি বীজ ফসলের জাতের বিশুদ্ধতা রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

-বিভিন্ন অঞ্চলে নোটিফাইড ফসলের উদ্ভাবিত নতুন ইনব্রিড ও হাইব্রিড জাতের মাঠ মূল্যায়ণ  কার্যক্রম সমন্বয় সাধন ও মূল্যায়ন ফলাফল সংকলন করে প্রতিবেদন, জাতীয় বীজ বোর্ডের কারিগরী কমিটি সভায় ছাড়করণ ও নিবন্ধনের সুপারিশ প্রণয়নের নিমিত্তে উপস্থাপন করা । 

 

   

প্রশিক্ষণ ও প্রকাশনা শাখার কার্যক্রম

 

কর্মদক্ষতা বৃদ্ধি, সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা, আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে কাজের গুণগতমান উন্নয়ন এবং প্রাতিষ্ঠানিক কর্মকান্ড, গুরুত্ব ও পরিচিতি জনগণের মাঝে তুলে ধরা এ শাখার কাজ। এজেন্সীর কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বীজ প্রযুক্তি বিষয়ক প্রশিক্ষণকে প্রাধান্য দিয়ে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ, অফিস প্রশাসন ও ব্যবস্থাপনা এবং হিসাব বিষয়ক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

 

কৃষক পর্যায়ে মানসম্পন্ন বীজ উৎপাদনকে ত্বরান্বিত করার উদ্দেশ্যে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মাঠ পর্যায়ের কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা এবং উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের জন্য  বীজ প্রযুক্তি ও বীজ আইন বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

 

জাতীয় প্রচার মাধ্যম বাংলাদেশ বেতার এবং বাংলাদেশ টেলিভিশনের কৃষি বিষয়ক কার্যক্রমের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাগণ বীজ উৎপাদনের উন্নত কলাকৌশল, বীজের মান নিয়ন্ত্রণ, সহজ উপায়ে বীজমান পরীক্ষা, মাঠে বীজ ফসলের পরিচর্যাসহ বিভিন্ন বিষয় সম্প্রচারের মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন। প্রশিক্ষণ ও প্রকাশনা শাখার তত্ত্বাবধানে একটি সমৃদ্ধ রেফারেন্স লাইব্রেরী চালু রয়েছে।

 

SCA WING (2).pdf SCA WING (2).pdf

Share with :
Facebook Facebook